লড়াই যখন দুইপক্ষে তুঙ্গে, মানুষ যখন যোদ্ধা- সেনার সাজে ,
হৃদয় তখন দুর্বল ভীষণ, সঙ্গীহীন কঠিন বরফ।
পর্বত শিখর কারোর নয়, তবুও তাকে জিততে চাওয়া
এক মুহুর্তে বিজয়ী হয়ে আত্মগরিমার আবেশে আসা !
কৈলাসপতি মহাদেবের জটা একনায়কত্বের শিকার ,
ত্রিকালদর্শী দেবাদিদেবের কপালে চিন্তার ভাঁজ !
সিরু নদীর নীল স্রোতে হারিয়ে গেছে কি সেই মানুষেরা ?
নাকি তাপ্তি নদীর বালুচরে সূর্যের উষ্ণতা-কে প্রতিনিয়ত আলিঙ্গন করে চলেছে ?
সূর্য যখন পশ্চিম দিকে হেলে কাঞ্চনজঙ্ঘার চূড়াকে দুধে-আলতা রঙের অদ্ভুত এক রেশমি আভায় শোভিত করে তুলেছে ,

খাইবার পাস-এর নিস্তব্ধতা তখন গুমরে গুমরে কাঁদছে ।
চূড়া থেকে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে রক্তাক্ত আফগানিস্তান
বর্বরতা যেখানে চূড়ান্ত সীমায় হানছে মৃত্যুর আঘাত !
অশিক্ষা সেখানে প্রধান হাতিয়ার নারীর অধিকার রুখতে,
সদ্যোজাত শিশুর মুক্তি নেই – সেও রণক্ষেত্রে !
অধিকারতন্ত্র রুপায়ণ করেছে প্রতিক্ষেত্রে ঈর্ষা ,
দেশের জন্য নয়, দশের জন্য নয়, সবই শাসকের হিতার্থে ।
স্বৈরাচারের নির্মমতায় জ্বলছে কাবুলে আগুন
প্রাণবায়ুকে করেছে বন্দি অন্ধকূপে, এমনই নির্দয় নির্মম !
কাবুলিওয়ালার সত্তা রোদন করে তার খোঁখির কথা ভেবে ,
খোঁখি তার বেঁচে থাকে যেন – এই মোনাজাত করে !

হেলমন্দ নদী প্রবাহ রুদ্ধ ভীত আফগানদের দেখে ,
আমু দরিয়ার আর্তনাদ সাহায্যের প্রার্থনায় , ” একটু শান্তি চাই ! ”
নিরপেক্ষতাই আশার আলো , উপায় নেই নিরপেক্ষ থাকার
বশ্যতা স্বীকার করতে হবেই , মিলবে বিনিময়ে নিজের প্রাণ !
পৃথিবী জুড়ে রাজনীতির প্রতিযোগিতায় প্রবল জেদাজেদি ,
সবাই চাইছে প্রথম স্থান এবং বিশ্বজোড়া খ্যাতি ।
শকুনি মামার পাশার চালে প্রাণ হারাচ্ছে মানুষ ,
ধ্বংস হচ্ছে সার্বভৌম দেশ , অসহায় জনমানব ।

” এই দুনিয়ার সকল ভালো , আসল ভালো নকল ভালো ,
সস্তা ভালো , দামীও ভালো , তুমিও ভালো আমিও ভালো । ”
– এই বাক্যদের বিন্দুমাত্র বিশ্বাস নেই মানবজাতি
ভালো-মন্দ বিচার করার চাইতেও প্রাণ বাঁচানোর তাগিদ-ই যে অত্যাধিক !
এহেন করুণ অবস্থায় দুর্দশার দেশগুলি কাঁদছে –
কিন্তু প্রতিযোগিদের নিষ্পলক চোখের দৃষ্টি বিচ্যুত হয়নি , গলেনি ওদের পাষাণ হৃদয় !
বিদ্যমানতা জাহিরের প্রতিযোগিতা চালাচ্ছে ওরা প্রতিযোগিতা চলছে , তমসাবৃত আগামী দিনগুলিতেও চলবে ।

∼স্বয়ং ( অভীপ্সা মজুমদার ঘোষাল )

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here