প্রায় বছরখানেক আগে রং তুলিকে সঙ্গী করে ফেসবুকে ছবি আঁকার গ্রুপ খুলেছিল কলকাতার কলেজ পড়ুয়া শালিনী মাজী, ঋক্ ধর্মপাল বন্দ্যোপাধ্যায় ও সোহিনী মাজী। তারপর কেটে গেছে গোটা একটা বছর, ছবির গন্ডী পেড়িয়ে শিল্প ও শিল্পীরা তাদের শাখাপ্রশাখা ছড়িয়েছে বিস্তর। নানান স্বাদের ছবির পাশাপাশি বহু শিল্পীর রকমারি হাতের কাজে ভরপুর এই গ্রুপটি খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করে। এক বছরের মধ্যে গ্রুপের সদস্য সংখ্যা বেড়ে দাড়ায় ৩৭০০০ এ। বর্ষপূর্তিতে এই বিপুল সাফল্য উৎযাপনের মাধ্যম হিসেবে শিল্প প্রদর্শনীকে বেছে নিলেন গ্রুপ অ্যাডমিনরা।

 ১২ই ডিসেম্বর থেকে কলকাতার গোলপার্ক অঞ্চলের “দেবভাষা”-এ চল্লিশ জন শিল্পীর  প্রায় একশোরও বেশি শিল্প নিয়ে শুরু হলো আঁকিয়েদের প্রদর্শনী। ১২ তারিক দুপুরে শিল্পী কৃষ্নেন্দু চাকী প্রদর্শনীর শুভ উদ্বোধন করেন, প্রদর্শনী চলবে আগামী ১৪ তারিখ পর্যন্ত। নবীন থেকে প্রবীণ, সকল বয়েসের শিল্পীদের অংশগ্রহণ রয়েছে এই প্রদর্শনীতে। কলকাতা ছাড়াও ছবি এসেছে দেশের নানান প্রান্ত থেকে, এমনকি ওপার বাংলা থেকেও সারা মিলেছে বহু শিল্পীর, এমনটাই জানিয়েছেন গ্রুপ অ্যাডমিনরা।

“আঁকিয়েদের আড্ডা” গ্রুপের অন্যতম কর্ণধার শলিনী জানিয়েছেন ‘শিল্পীর স্বাধীনতাই এই গ্রুপের মূল বক্তব্য। এই কারনেই আমরা কোনো থিম রাখিনা, রাজনৈতিক সবরকমের ছবিকেই আমরা সমান সমাদর করি।’ শিল্প ও শিল্পীর স্বাধীনতা বজায় রেখে সব রকমের শিল্পকে সমাদর জানানোর মঞ্চ হিসেবেই প্রাথমিক স্তরে গ্রুপটি খোলা হয়েছিল। শিল্পের প্রতি মানুষের সতঃস্ফূর্ত উৎসাহ দেখেই বর্ষপূর্তিতে প্রদর্শনীর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানান অ্যাডমিনরা। এই মর্মে দেশের নানান প্রান্তের শিল্পীদের হরেকরকম শিল্পের মধ্যে থেকে বাছাই করা চল্লিশজন শিল্পীর কাজ নিয়ে গত ১২ই ডিসেম্বর থেকে প্রদর্শনীর সূচনা হয়। করোনা আবহে যখন মানুষের জীবন থেকে বিনোদন জগৎ প্রায় ব্রাত্য, সেই পরিস্থিতিতেও শিল্প কে উৎযাপন করতে মানুষের আনাগোনা ছিল চোখে পড়ার মতন। এর থেকেই বলা যায় বাঙালি আজও শিল্পের কদর করতে ও সংস্কৃতিকে উৎযাপন করতে ভোলেনি। তবে প্রদর্শনীতেই শেষ নয়, পরবর্তীকালে শিল্প সমন্ধীয় পত্রিকা প্রকাশ করারও পরিকল্পনা রাখে এই গ্রুপ, এমনটাই জানান “আঁকিয়েদের আড্ডা’ র আর এক কর্ণধার ঋক্ ধর্মপাল বন্দোপাধ্যায়। সংস্কৃতি কে উৎযাপন করার চেষ্টা এভাবেই এগিয়ে চলুক আঁকিয়েদের হাত ধরে। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here