সম্রাট হুমায়ূনের রাজত্ব কালে ঘটে ছিল এক অদ্ভুত ঘটনা।সামান্য এক ভিস্তিওয়ালাকে একদিনের জন্য করা হয়েছিল মোঘল সম্রাট। শেরশাহ ( খাঁ) এর বিরুদ্ধে চৌসারেরযুদ্ধে সম্রাটহুমায়ূন খুব একটা সুবিধা করে উঠতে পারেনি শুরুতে। সম্রাটের উদার ও খাম খেয়ালী মনোভাবই এর জন্য দায়ী। যুদ্ধক্ষেত্রে তিনি ঘোড়াসহ নদীতে পড়েন।সেই সময় এক ব্যাক্তি,যিনি ভেড়ার চামড়ায় জল দিতেন, তিনি সম্রাটকে দেখেন ও উদ্ধার করেন। সম্রাটকে জল দিয়ে পিপাসা মেটান।সে সময় সম্রাট হুমায়ূন তাকে আশ্বাসদেন,পুরষ্কারস্বরূপ তিনি ওই ভিস্তিওয়ালাকে একদিনের জন্য মোঘল সম্রাট করবেন। পরে সম্রাট হুমায়ূন দিল্লী ফিরে গেলে,ওই ভিস্তিওয়ালা সম্রাটের দরবারে আসেন ও নিজের পুরষ্কার দাবি করেন।



সম্রাট তাকে এক দিনের জন্য সিংহাসন ছেড়ে দেন, এমনকি নতুন ফরমান জারি করার ক্ষমতাও দেন।যদিও সম্রাটের এইরূপ আচরণ রাজ্য প্রাসাদের মধ্যেই হাসির কারন হয়ে দাঁড়ায়।অনেকে এতে মোঘল ঐতিহ্যের অপমান দেখতে পান।সম্রাট হুমায়ুনের ভাই কামরান মির্জাএই পুরস্কারের ঘোরতর বিরোধী ছিলেন।গুলবদনের লেখা হুমায়ুননামায় বলা আছে ভিস্তিনিজাম দুই দিনের জন্য দিল্লির সিংহাসনেছিলেন।অন্য কোন সূত্র তা সমর্থন করে না। নিজাম যে অর্ধেক দিনের জন্যই সম্রাট, তাই জানা যায়।
যদিও এক দিনের সম্রাট , সম্রাটদের মত খাওয়া দাওয়া করে প্রচুর ধনরত্ন নিয়ে নিজের গ্রামের দিকে রওনা হয়।দিল্লির উপকন্ঠেতার উপর ডাকাতদল ঝাঁপিয়ে পড়ে।এই ডাকাতদল সবাই ছিল কামরান মির্জারসৈন্য।নর্দমাতে ভিস্তিনিজামের মৃতদেহ পাওয়া যায়।

— রজত সাহা

                                 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here