মুখোমুখি

0
87

ধরো পাহাড়ী রাস্তায় তুমি আর আমি হঠাৎ চোখাচুখি; সাত বছরের অভিমান ভুলে মৌনতা ভেঙে তুমি কী আমার সাথে কথা বলবে? কে জানে হয়তো কথা বলবেনা। কিন্তু সব কথা তো শব্দে হয় না , নীরবতারাও উত্তর দিতে জানে। পাহাড়ের স্তব্ধতায় তুমি কি একটু হলেও আমায় অনুভব করবে?

কে জানে হয়তো করবেনা। আমি কিন্তু করব তবে একটু নয় প্রতিনিয়ত।
শীতল হাওয়ায় শরীরে শিহরন জাগলে তুমি কী আমার হাতের আঙুল খুঁজবে ? কে জানে হয়তো খুঁজবে না। আমি কিন্তু ওই হাতের আঙুল খোঁজার জন্য খুঁজব না বরং পাগলের মতো হাতড়ে বেড়াব শীতলতার কোণায় কোণায়।

বরফের বৃষ্টিতে ভিজে যখন তুমি সর্বশান্ত তখন কী আমার চোখের উষ্ণতা দেখতে চাইবে ? কে জানে হয়তো চাইবে না। আমি কিন্তু সাদা বরফের ভিড়ে তোমার চোখের উষ্ণতা না দেখার হাহাকার নিয়েই ভিজে যাব অবিরত।
রাতের আঁধারে যখন তুমি পাহাড়ের মেঘলা আকাশে কুঞ্জ মেঘের সমীকরণ দেখে মুগ্ধ হবে তখন পুরোনোর অধ্যায়ে ফেলে আসা এই আমিটাকে কী তুমি মনে রাখবে? কে জানে হয়তো মনে রাখবেনা।

আমি কিন্তু ওই মেঘেদের সমীকরণে তোমাকে না বলে ওঠা কথাগুলো বলে যাবো নিশিরাত। কারণ তুমি এসেছো হাওয়াবদলে আর আমি এসেছি কোন এক প্রেমিকের হাহাকারের মিছিলে। কিন্তু তবুও তো সমকাল আমাদের মুখোমুখি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here