বন্ধুত্ব…কথাটা অনেক দামি…একজন ভাল বন্ধু আপনার সেরা গল্পগুলি জানে, তবে একটি সেরা বন্ধু আপনার সাথে আপনার সেরা গল্পগুলোয়  বাঁচে। এমনি একটি বন্ধুত্বের গল্প নিয়ে আপনাদের মুগ্ধ করতে আসছে “বন্ধু চল” – এটি একটি কভার মিউসিক ভিডিও। ২৭ তারিকে ওয়ান লাভ মিডিয়া ইউটিউব চ্যানেল-এ মুক্তি পাবে মিউসিক ভিডিও-টি. ২০১৫-এ মুক্তি পাওয়া বাংলা ছবি “ওপেন টি বিয়োস্কোপ” এর গান এটি. সুর বেঁধেছিলেন শান্তনু মৈত্র, গেয়েছিলেন অনুপম রায় এবং গানটি লিখেছিলেন প্রসেন। কভার গানটি গেয়েছেন অরিত্র ব্যানার্জি।  মিউসিক ভিডিও পরিচালনা এবং চিত্রগ্রাহন করেছেন অভিষেক চৌধুরী। অভিনয় করেছেন দেবতনু, ইভান সাইর ও পূজা সরকার। গায়ক অরিত্র চৌধুরী কেও দেখা যাবে এই কভার মিউসিক ভিডিওতে। এমনি এক বন্ধুত্বের আড্ডায় আমরা পেয়ে গেলাম এই মিউসিক ভিডিওতে যুক্ত থাকা কলাকুশলী দের.


সবারপ্রথমে আসি এই মিউসিক ভিডিওর পরিচালক চিত্রগ্রাহক এর কাছে। অভিষেক, আমাদের সবার জীবনেই আমাদের কাছের বন্ধুদের সাথেই অনেক সেরা সেরা স্মৃতি থাকে। আপনার জীবনে সেরা স্মৃতি কি আপনার কাছের বন্ধুদের সাথে? আর আপনার সবথেকে কাছের বন্ধুই বা কে…??

অভিষেক : বলতে গেলে বন্ধুদের সাথে memorable moments এর কোনো অভাব নেই। তবে সবচেয়ে emotional moments গুলোর মধ্যে একটা হচ্ছে last আমি যখন আমার home town গেছিলাম, ঘুরতে, ছোটবেলারএক বন্ধুর বিয়ে attend করতে প্রায় ৬ বছর পর নিজের রাজ্যে (ত্রিপুরা) ফিরি and the fun part is বাড়িতে গিয়ে ঢুকতে না ঢুকতেই আমার school life এর বন্ধুরা খবর পেয়ে বাইক স্কুটি নিয়ে আমার বাড়ির সামনে এসে হাজির হয় আর চিৎকার করে ডাকতে থাকে। আর এই এতদিন পর ছোটবেলার crime partner দের দেখে আমি আর আমার excitement ধরে রাখতে পারিনি। সেই অবস্থাতেই বেরিয়ে পরি ওদের সাথে।বন্ধুদের সাথে ৬ বছর পর আবার ও শহরটাকে নতুন করে ঘুরে দেখার দিনটা আমি কোনোদিনও ভুলব না। আর ওখান থেকেই প্লটটা আসে।একজনের নাম mention কর কঠিন অনেক বন্ধুই আছে যারা আমার খুব কাছের।

আচ্ছা। খুব ভালো লাগলো শুনে। তা হঠাৎ কভার মিউসিক ভিডিও বানানোর কারণ? গল্পটা কিভাবে বুনলেন এবং শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে যদি কিছু বলেন সংক্ষেপে।

অভিষেক : বলতে গেলে তেমন ভাবে কোনো plan নিয়ে music video টা বানানো হয়নি। আমি, দেবতনু আর ইভান kfc তে চিকেন খেতে খেতে, আড্ডা দিচ্ছিলাম, তো আমার ফোনে অরিত্রর (singer) বেশ কিছু গান ছিল, আমি ওদের গানটা শোনালাম আর প্লটটা বললাম। বাকিটা ইতিহাস। দুদিনের মধ্যে সব ঠিকঠাক করে video টা shoot করা হলো, তার experience খুবই মজার।পুরো কলকাতা শহর ঘুরে ঘুরে, মোটামুটি ৬-৭ ঘন্টার মতে আমরা ভিডিওটা বানিয়েছি।


এবারে যাবো এই কভার গানের গায়কের কাছে। অরিত্র, বন্ধু চল ছাড়া আপনার সবথেকে পছন্দের বন্ধুত্বের গান কোনটা? আর গানটার মধ্যে আপনার সেরা লাইন কোনগুলো লাগে?

অরিত্র : যে গানটা আমার শুনে মনে হয়েছে যে এটা বন্ধুত্বকে ডিসক্রাইব করে সেটা হচ্ছে “ইয়ে দোস্তি”আর এই গানের প্রিয় লাইন হচ্ছে এ দোস্তি হাম নেহি ছোড়েঙ্গে ! কারণ বন্ধুরাই তো সব বন্ধুরা যদি জীবন থেকে চলে যায় তাহলে আর তো কিছু পড়ে থাকে না আমরা অনেক বন্ধুকে হারিয়ে ফেলি আবার আমরা অনেক সময় লাকি হই কারণ অনেক বন্ধুরাই সারা জীবন সাত দেয় কখনো সেই বন্ধুই তোমার প্রিয় সঙ্গী হতে পারে, কত বেস্ট ফ্রেন্ডই তো কত মানুষের জীবন সঙ্গী হয়েছে তাই না ?

একদম ঠিক। আচ্ছা, প্রথম কবে ইচ্ছে হয়েছিল গান করার? এবং আগামীদিনে যারা গান নিয়ে এগোনোর কথা ভাবছেন, তাঁদেরকে কি বলতে চান?

অরিত্র : গান গাওয়ার ইচ্ছে আমার ছোট থেকেই ছিল অনেক ছোটবেলা থেকেই গান করছি স্কুলে কয়ার গ্রুপে গাইতাম সেই থেকে আস্তে আস্তে শুরু আর এখন এটাই পেশা আর নেশা. আগামী দিনে যারা গান গাইতে আসে তাদেরকে এটাই বলব যে গান তো অনেকেই গায় ,গান তো প্রায় প্রত্যেক বাঙালি বাড়িতেই চর্চা হয় কিন্তু তুমি যাই করো সেটা গান হোক বা নাটক, বা এন ই ফর্ম অফ আর্ট সেটাতে বেস্ট হতে হবে এবং প্রচন্ড মেহনত করতে হবে লক্ষ্যটা থাকবে নিজের সাথে নিজের লড়াই অনেক বাধা বিপত্তি আসবে অনেক মানুষ খারাপ বলবে কিন্তু সবাইকে তার উচিত জবাব তোমার কাজ দিয়ে দিতে হবে এইভাবে আস্তে আস্তে মানুষের মন জয় করতে থাকলে তুমি সাকসেসফুল হবেই!


অনেক অনেক ধন্যবাদ অরিত্র। পরের প্রশ্ন এই মিউজিক ভিডিওর  অভিনেতা দেবতনু কে.  দেবতনু , বন্ধু শব্দটি শুনলে আপনার সবার আগে কার কথা মনে হয়.? আর শুটিং এর অভিজ্ঞতা যদি একটু সংক্ষেপে বলেন.

দেবতনু : দেখো! অভিজ্ঞান, তুমিও আমার বন্ধু।বন্ধুত্বের অনেকগুলো লেয়ারস্ হয়। আমি একজনের নাম বললে, বাকিরা কষ্ট পাবে। আর আমি মনে করি, বন্ধুত্ব, সময় ও পরিস্থিতির সাথে অনেকটা পরিবর্তনশীল।তাই এই বিষয়ে কথা শুরু করলে আমাকে থামনো যাবে না। তবে হ্যাঁ! ছোট করে বললে, সবসময় তোমার সহযোগীতায় যে এগিয়ে আসে সেই আসল বন্ধু, এই মর্মকুটির বা one love media র মতো অনেকটা। আর শুটিং আমার কাছে সবসময়ই মজার, খেলার মত enjoy করি| আলাদা কিছু নেই। It was a friends day out. আর অভিষেক আমার খুব কাছের মানুষ! ওর সাথে আমি আগেও ক্ষনে ক্ষনে (waiting for release)- তে কাজ করেছি। ও জানে ও কি বানাতে চায়, তাই বেশ মজায় মজায় হয়ে গেছে, আরকি!

বাহ। অনেক শুভেচ্ছা আপনার আগামি কাজের জন্য। পরের প্রশ্ন এই মিউজিক ভিডিওর  আরেক অভিনেতা ইভান কে. ইভান, বন্ধুত্বের মধ্যে ঝগড়াঝাটি হওয়া খুব সাধারণ. আপনার বন্ধুর সাথে হওয়া এমন এক ঝগড়ার কথা বলুন যেটার পর থেকে দূরত্ব এসেছে আপনাদের মধ্যে? এমন কিছু হয়েছে কি?  আর শুটিং এর অভিজ্ঞতা যদি একটু সংক্ষেপে বলেন.

ইভান : হুম বন্ধুদের সাথে ঝগড়াঝাটি হওয়া খুব সাধারণ ঘটনা। বিশেষ করে যত ভালো বন্ধু তার প্রতি তত অভিমান আর অধিকার কাজ করে। এরকম ঘটনা অনেক। তবে সবচেয়ে মজার ঘটনা আমার এক বন্ধু শ্রাবণ্য। ওর সাথে মেসি আর রোনালদোকে নিয়ে ঝগড়া করে প্রায় এক বছর কথা বলা বন্ধ ছিল (হাহাহাহা)। পরে আবার বন্ধুত্বের টানা সব মিটে গেছে। আর শুটিং অভিজ্ঞতা দারুন। আমি বাংলাদেশের। কলকাতায় এটা আমার প্রথম কাজ। এই মায়ার শহরে হাওড়া ব্রীজে প্রথম আমার ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানো স্বপ্নের মতন ব্যাপার। পূজা আর দেবতনুতো শুটিং করতে করতে একদিনেই সত্যি বন্ধু হয়ে গেছে। ওরা এমন আপন করে না নিলে কাজটা করা আমার জন্য কঠিন হত। কলকাতার অনেক জায়গা জুড়ে শুটিং আমার মন ভরিয়ে দিয়েছে। বিশেষ করে কুমারটুলি। ডিরেক্টর অভিষেককে নিয়ে কি বলবো! আমি ওর ফ্যান হয়ে গেছি। একদিন ও অনেক নাম করবে বলে দিলাম। অভিষেককে ধন্যবাদ আমাকে এতটা সহযোগীতা করার জন্য। আর অরিত্র যেমন ভালো শিল্পী, তেমন ভালো মানুষ মনে হয়েছে। ওকে ধন্যবাদ এই গানটি করার জন্য। মোটকথা গানের মতই এখন আমার মনে হয়, আমরাও সবাই ভালো বন্ধু হয়ে গেছি। ভালোবাসা সকলের জন্য।

অসাধারন। আপনাকেও অনেক শুভেচ্ছা এবং ভালোবাসা।  পরের প্রশ্ন এই মিউজিক ভিডিওর অভিনেত্রী পূজা কে. পূজা, অনেকেই বলে থাকে বন্ধুর জন্য জীবন দিতে রাজি। কতটা বিশ্বাস করেন এই কথাটা? যদি এমন পরিস্থিতি আসে যেখানে আপনাকে আপনার বন্ধুর জন্য জীবন দিতে হবে, আপনি দিয়ে দেবেন? আর শুটিং এর অভিজ্ঞতা যদি একটু সংক্ষেপে বলেন.

পূজা : অসংখ্য ধন্যবাদ আমাকে এই প্রশ্নটি করার জন‍্য। আসলেই তাই, বন্ধুর জন্য চাইলে প্রাণ দেওয়াই যায়। সত‍্যিই তো ভালোবাসা থাকলে কি ই করা যায়। সে আমাদের জন্মদাতা বাবা-মায়ের জন‍্য হোক কি বন্ধু। যতোই হোক বন্ধু ভাগ্য সবার থাকেনা। আর সেই সুবাদে যদি কেউ সেই ভাগ‍্যে ভাগ‍্যবান/ভাগ‍্যবতী হয় তাহলে সেই বন্ধুর জন‍্য হাসতে হাসতে জীবন দেওয়াই যায়। তাতে মানুষ হিসাবে জন্ম নেওয়াটা কিছুটা হলেও সার্থকতা পাবে। 😊

আমাদের এই “বন্ধু চল” গানের শুটিং নিয়ে সত্যিই সেরকম ভাবে আলাদা করে কিছুই বলার নেই যে না আমাদের খুবই কষ্ট হয়েছে। সেটা কিন্তু একদমই নয়, বরং কিভাবে যে ওই বন্ধুদের মধ‍্যে আড্ডা হাসি গানে সারাদিন কেটে গেল বুঝতেই পারিনি। আবশ‍্যই কো-অপেরেশন বলেও একটা ওয়ার্ড আমাদের মধ‍্যে ভিষন ভাবে কাজ করে। সেটা সব ক্ষেত্রেই। কাজের জায়গা বলে সেটা থেমে থাকেনা। আমাদের টিমের প্রতিটি মানুষের কো-অপেরেশন ছাড়া এই কাজ কেন যে কোনো কাজই করা অসম্ভব।

অনেক অনেক ধন্যবাদ পূজা। অনেক শুভেচ্ছা রইল আপনার জন্য। প্রকিত বন্ধু সেই যে সবসময় পাশে থাকে।

আড্ডায় বেরিয়ে এলো অনেক ইমোশনস, অনেক ভালো লাগার এবং কিছু মন খারাপের অনুভূতি। চোখ রাখুন ওয়ান লাভ মিডিয়া ইউটিউব চ্যানেল-এ একটি সুন্দর বন্ধুত্বের গল্প দেখার জন্য।

Article Write up and Interview Conducted By – Avigyan Chatterjee

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here