একে চলছে বিয়ের মরশুম তাতে আবার ভ্যালেন্টাইস ডে, এইসবের মধ্যে এসে পড়লো সরস্বতী পূজা, যাকে বলে বাঙালির ভ্যালেন্টাইনস ডে। মানে সব মিলিয়ে লাভি-ডাভি একটা আবহাওয়া। এরই মধ্যে এস.ভি.এফ নিয়ে এলো ভরপুর কমেডি আর রোম্যান্সে মোড়া মিনি সিরিজ “বিয়ে Scenes”। পুরোদস্তুর বাঙালি স্বাদের এই মিনি সিরিজের অন্দরমহলের নানান টক ঝাল মিষ্টি গল্পের খোঁজে মর্মকুটির পৌছলো “বিয়ে Scenes” এর নায়ক ডিউক বোসের কাছে। নায়কের অভিজ্ঞতায় উঠে এলো নানান মিষ্টি মধুর গল্প। সেসব গল্পের কিছু অংশ রইল আপনাদের জন্য আলাপচারিতায়।

ডিউক বোস

এস.ভি.এফ এর সাথে আপনার নতুন সিরিজ “বিয়ে Scenes” সম্পর্কে কিছু বলুন।

ডিউক –

“বিয়ে Scenes” একটা কমপ্যাক্ট ফ্যামিলি ড্রামা। এতে কমেডি যেমন আছে তার সাথে রোম্যান্সও আছে আবার আবেগও আছে। ইটস অল অ্যাবাউট বাঙালি। বাঙালি আর বাঙালির প্রেম। এই  গল্পে বাঙালির পারিবারিক জীবনের ছাপোষা স্বাদ রয়েছে, আবার পাশাপাশি এটা একটা লাভ স্টোরিও বটে। সব মিলিয়ে একটা জমজমাট গল্প এই “বিয়ে Scenes”।

এই সিরিজটা কে বেছে নেওয়ার কারন কি? 

ডিউক –

“বিয়ে Scenes” কে বেছে নেওয়ার কারন হল এর গল্পটা। অসম্ভবব রিলেটেবেল একটা গল্প। প্রতিটা বাঙালি ছেলে তার মা কে খুঁজে পাবে এখানে, প্রতিটি মাও খুঁজে পাবে তার ছেলে কে। গল্পটার প্রতিটা অংশ আমি রিলেট করতে পেরেছি। এছাড়া এস.ভি.এফ এর মতন এতো বড়ো একটা প্রডাকশন হাউসের সাথে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি।

অভিনয় জগতে আসার আগে আপনি এয়ার লাইনসে চাকরি করতেন। ক্যারিয়ারের এহেন মোড় বদলের কারন কি? 

ডিউক –

মোড় বদল ঠিক বলা যায় না। আমি ছোটো থেকেই অভিনেতা হতে চেয়েছিলাম, ওটাই আমার লক্ষ ছিল। ২০১৩ সালে স্কুল পাশ করার পর কিসে গ্র্যাজুয়েশন করব ভাবছি, মা বললো হোটেল ম্যানেজমেন্ট টা ভাবতে । মায়ের কথা মতন সেভাবেই এগোচ্ছিলাম, এর মধ্যে আমার এক বন্ধু আমায় বললো এয়ার লাইনসে একটা ইন্টারভিউ দিতে। সেটাও করে দেখলাম, এয়ার লাইনসে ইন্টারভিউ টা দিলাম। সেবার ৭৩৫ জনের মধ্যে ২ জন সিলেক্টেড হলো। ভাগ্যক্রমে সেই দুজনের মধ্যে আমি একজন ছিলাম। ব্যাস শুরু হলো চাকরি জীবন। বেশ কিছু দিন চাকরি করলাম, দিয়ে কলকাতায় ট্রান্সফার হওয়ার পর এক বন্ধুর সাথে মিলে একটা ইউটিউব চ্যানেল খুললাম। ইতিমধ্যে আড্ডা টাইমসের এক ডায়েরেক্টরের নজরে আসি। তিনি আমায় “ও মাদার” সিরিজে কাস্ট করেন। এরপর “ও মাদার২” ও “কারমা” সিরিজ এ কাজ করেছি  এবং এখন “বিয়ে Scenes” এ কাজ করছি। এছাড়া “আন্ডার গ্রাউন্ড অথরিটি”, “খীর”, “অপরিচিত” এই তিনটি শর্ট ফিল্ম ও বেশ কিছু অ্যাড ফিল্মে কাজ করেছি।

পর্দায়ই কি প্রথম অভিনয়? না আগেও অভিজ্ঞতা ছিল?

ডিউক –

অভিনয় নয়, তবে প্রায় তিন বছর বয়স থেকে আমি স্টেজে গান গাইতাম (এখন অবশ্য গানটা বাথরুমেই সীমাবদ্ধ), তাই স্টেজের প্রতি কোনো ভীতি আমার ছিল না।

প্রায় এক বছরের লকডাউনের পর নতুন সাস্থবিধি মেনে শুটিং এর অভিজ্ঞতা কেমন? 

ডিউক –

সত্যি বলতে খুব একটা অসুবিধে হয়েনি। কারন আমি শুটিং করতে শুরু করেছি জুন জুলাই থেকে, ততদিনে নতুন সাস্থবিধিতে আমরা মোটামুটি ধাতস্থ হয়ে গেছিলাম।

“বিয়ে Scenes” শুটিংপর্বের পথচলা কেমন ছিল? 

ডিউক –

ভিষণ সুন্দর অভিজ্ঞতা, অনেক কিছু শিখেছি তার পাশাপাশি ভিষণ উপভোগ করেছি পুরো ব্যাপারটা। খুব কম সময়ের মধ্যে আমরা শুট শেষ করেছি, তাই আমাদের বেশ লম্বা শট দিতে হতো। কিন্তু আমরা এতটাই এনজয় করতাম যে একটানা শট দিয়েও খুব একটা ক্লান্ত হতাম না। এছাড়া কো-অ্যাক্টররা আমার ভালো বন্ধু ছিল, আর শুটিং ফ্লোরে সবাই খুব সাহায্য করেছে। 

পরবর্তী পরিকল্পনা কি? অভিনয়ে তেই থাকবেন, নাকি আবার মোড় বদল? 

ডিউক –

যদিও অতদূরেরটা এখনো ভাবিনি , তবু ছোটোবেলা থেকে আমি অভিনেতা হতে চেয়েছি এবং আগেও অভিনয়ই করতে চাই।

এই ভালোবাসায় মরশুমে রোম্যান্টিক নায়ক ডিউক বোসের রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস কি?

ডিউক –

একেবারে সিঙ্গেল, পুরোদস্তুর সিঙ্গেল।

এবার সরস্বতী পূজায় এস.ভি.এফ এর নতুন মিনি সিরিজ “বিয়ে Scenes” আসছে বাঙালি মনের নস্টালজিয়া কে চাগার দিতে। দেখতে ভুলবেন না কিন্তু, হয়েতো মিল খুঁজে পেতে পারেন আপনার রোজনামচার সাথেও।

সাক্ষাতকারে ঈশানী ধর

(টিম মর্মকুটির)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here